fbpx

কোভিড-১৯: মৃতের সংখ্যা আড়াই লাখ ছুঁই ছুঁই

গতবছর শেষের দিকে চীনের উহান থেকে শুরু হয় প্রাণঘাতী নভেল করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব। সময়ের সাথে যা ছড়িয়ে পরে পৃথিবীর সব প্রান্তে। ইতিমধ্যে ২১২টি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়েছে এ ভাইরাস। সেই সাথে বেড়েছে এর ধ্বংসযজ্ঞ।

ওয়ার্ল্ডোমিটারে তথ্যানুযায়ী, বিশ্বজুড়ে এখন পর্যন্ত করোনায় ২ লাখ ৪৮ হাজার ২৮২ জন মানুষের মৃত্যু হয়েছে। আক্রান্তের সংখ্যা ৩৫ লাখ ৬৬ হাজার ছাড়িয়েছে। আক্রান্তদের মধ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১১ লাখ ৫৪ হাজার ১৪ জন। বর্তমানে চিকিৎসাধীন ২১ লাখ ৬৩ হাজার ৭০৮ জন। এদের মধ্যে ২১ লাখ ১৩ হাজার ৬৬৮ জনের শরীরে মৃদু সংক্রমণ থাকলেও ৫০ হাজার ৪০ জনের অবস্থা গুরুতর।

আক্রান্ত ও মৃতের দিক দিয়ে সবার উপরে যুক্তরাষ্ট্রের। দেশটিতে এখন পর্যন্ত ৬৮ হাজার ৫৯৮ জন মানুষের মৃত্যু হয়েছে। আক্রান্ত হয়েছেন ১১ লাখ ৮৮ হাজার ১২২ জন। মৃতের সংখ্যায় যুক্তরাষ্ট্রের পরের অবস্থানে রয়েছে ইউরোপের দেশ ইতালি। দেশটিতে এখন পর্যন্ত ২৮ হাজার ৮৮৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ১০ হাজার ৭১৭ জন। মৃত্যুর তালিকার তিন নম্বরে উঠে এসেছে যুক্তরাজ্য। দেশটিতে এখন পর্যন্ত ২৮ হাজার ৪৪৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৮৬ হাজার ৫৯৯ জন। এর পরের অবস্থানেই রয়েছে স্পেন। দেশটিতে এখন পর্যন্ত ২৫ হাজার ২৬৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। আক্রান্তের সংখ্যার দিক থেকে অবশ্য ২য় অবস্থানে রয়েছে এ দেশটি। এখানে ২ লাখ ৪৭ হাজার ১২২ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। মৃত্যুর তালিকায় এর পরের অবস্থানে রয়েছে ফ্রান্স। দেশটিতে এখন পর্যন্ত ২৪ হাজার ৮৯৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৬৮ হাজার ৬৯৩ জন।

এদিকে জার্মানিতে ১ লাখ ৬৫ হাজার ৬৬৪ জন মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন। মৃত্যু হয়েছে ৬ হাজার ৮৬৬ জনের। তুরস্কে ১ লাখ ২৬ হাজার ৪৫ জন আক্রান্ত হয়েছেন। এখানে মৃত্যু হয়েছে ৩ হাজারের বেশি মানুষের। রাশিয়ায় আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৩৪ হাজার ৬৮৭ জন, মৃত্যু হয়েছে ১ হাজার ২৮০ জনের। কানাডায় আক্রান্তের সংখ্যা ৫৯ হাজার ৪৭৪ জন, মৃত্যু হয়েছে ৩ হাজার ৬৮২ জনের।

উৎপত্তিস্থল চীনে এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ৮২ হাজার ৮৮০ জন এবং মারা গেছেন ৪ হাজার ৬৩৩ জন। এশিয়ার মধ্যে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হয়েছে ইরানে। এখানে এখন পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা ৯৭ হাজার ৪২৪ জন। মৃত্যু হয়েছে ৬ হাজার ২০৩ জনের।

এখন অব্দি, বাংলাদেশে ভাইরাসটি শনাক্ত হয়েছে ৯ হাজার ৪৫৫ জনের শরীরে। এদের মধ্যে মারা গেছেন ১৭৭ জন এবং সুস্থ হয়ে ঘরে ফিরেছেন ১০৬৩ জন। বর্তমানে চিকিৎসাধীন ৮ হাজার ২১৫ জন। ভাইরাসটি নিয়ন্ত্রণে দেশে চলছে অঘোষিত লকডাউন। পঞ্চম দফায় বাড়ানো হয়েছে সাধারণ ছুটির মেয়াদ।

Facebook Comments