fbpx

কোয়ারেন্টিন মানসিক স্বাস্থ্যে প্রভাব এবং উপায়!

করোনাভাইরাসের কারনে মানুষ একপ্রকার ঘরবন্দী জীবন কাটাচ্ছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই ঘরবন্দী জীবন মানুষকে শারীরিক এবং মানসিক এই দুইভাবেই বিপর্যস্ত করে তুলছে। তবে যারা নিয়মিত কাজের সঙ্গে যুক্ত থাকেন, যারা ভ্রমণপিপাসু তাদের ক্ষেত্রে লকডাউনটা খুব কঠিন সময়। বিশেষ করে শিশু ও বয়স্ক মানুষের ক্ষেত্রে এক জায়গায় থাকতে থাকতে তাদের মানসিক স্বাস্থ্যের ওপর বিরূপ প্রভাব পড়তে থাকে।

কোয়ারেন্টিন মানসিক স্বাস্থ্যের দুটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হলোঃ

  • সামাজিক ও মানসিক সুস্থতার ওপর মারাত্মক প্রভাব ফেলে।
  • দীর্ঘদিন ধরে একই জায়গায় থাকার ফলে নিজেদের মানসিক স্বাস্থ্যের পাশাপাশি শারীরিক স্বাস্থ্যে প্রভাব ফেলে।

দ্য ল্যানসেট জার্নালে প্রকাশিত একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে, যারা কোয়ারেন্টিনে ছিলেন তারা নানাবিধ মানসিক অসুস্থতাযুক্ত লক্ষণগুলোর কথা জানিয়েছেন। যার মধ্যে রয়েছে হতাশা, মানসিক চাপ, অল্পতে রেগে যাওয়া, অনিদ্রা, বিরক্তিভাব, মানসিক অশান্তি ও পোস্ট ট্রমাটিক স্ট্রেস সিমটম।

মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যা দূর করার উপায়ঃ

  • নিজেকে ব্যস্ত রাখুন।
  • নেতিবাচক চিন্তাভাবনা দূর করার চেষ্টা করুন।
  • প্রচুর পরিমাণে পানি পান ও সুষম খাদ্যগ্রহণ করুন।
  • বয়স্করা মৃত্যু ভয়ে ভুগতে পারেন। তাদের সঙ্গে সময় কাটান।
  • শিশুদের এমনভাবে ব্যস্ত রাখুন যাতে তারা একাকীত্বে না ভোগে।
  • যদি আপনি উদ্বেগ অনুভব করেন, তবে কয়েক মিনিটের জন্য শান্তভাবে বসে গভীর শ্বাস-প্রশ্বাস নেয়া ও ছাড়ার অনুশীলন করুন।
  • অপ্রয়োজনীয় চিন্তা থেকে নিজেকে দূরে রাখুন। মনকে শান্ত রাখুন।

ওপরে বর্ণিত সমস্যাগুলো যদি কোনোভাবেই দূর করতে না পারেন, তবে অবিলম্বে মানসিক স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞের সঙ্গে পরামর্শ করুন।

Facebook Comments