fbpx

রোনালদোর মাঠে ফ্রান্সের উৎসব

নামে-ভারে, শক্তিতে-ছন্দে সমান দুই দল। লড়াইও জমল তুমুল। আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণের জমজমাট লড়াইয়ে শেষ পর্যন্ত ব্যবধান গড়ে দিল পর্তুগাল গোলরক্ষক লুই প্যাট্রিসিওর এক ভুল। আর তাতে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোদের ১-০ গলে হারিয়ে উৎসবে মেতেছে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স। ম্যাচের একমাত্র গোলটি করেন এনগোলো কঁতে। এই হারে উয়েফা নেশন্স লিগ থেকে বিদায় নিয়েছে আসরের বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। আর পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে থেকে ‘ফাইনালস’ রাউন্ড নিশ্চিত করেছে ফ্রান্স। এর আগে ফ্রান্সের মাঠ থেকে গোলশূন্য ড্র করে ফিরেছিল পর্তুগিজরা। আর ২০১৯ সালের অক্টোবরের পর এই প্রথম পর্তুগালের হয়ে খেলতে নেমে দেখলেন হারের মুখ রোনালদো। শুধু তাই নয়, পাঁচ ম্যাচ পর গোল হজম করল ইউরো ও নেশন্স লিগের শিরোপাধারীরা।

গতপরশু রাতে লিসবনে প্রথম চার রাউন্ডে তিনটি করে জেতা ও একটি করে ড্র করা দল দুটির লড়াই শুরু থেকে রোমাঞ্চ ছড়ায়। খেলার শুরু থেকেই আক্রমণ, প্রতি আক্রমণে জমে উঠে ম্যাচ। দেখা যায় অনেকগুলো পরিকল্পিত আক্রমণ। কিন্তু গোল জালে ঢুকাতে ব্যর্থ হন দুদলের ফরোয়ার্ডরাই। পঞ্চম মিনিটেই গোলে শট নেন রোনালদো। তার আচমকা শটে ভড়কা না গিয়ে তটস্থ ছিলেন ফরাসি অধিনায়ক হুগো লরিস। ১১ মিনিটে কিংসলে কোমানের জোরালো শট দারুণ দক্ষতায় ঠেকিয়ে দেন পর্তুগাল গোলরক্ষক। ৩০ মিনিটে দুর্ভাগ্য সঙ্গী হয় ফ্রান্সের। আন্দ্রে রাবিঁওর ব্যাক ভলি পেয়ে হেড করেছিলেন মার্সিয়াল। তা আটকে যায় ক্রস বারে লেগে।

বিরতির পর আবার গোলের সুযোগ তৈরি করেছিলেন রোনালদো। তার শট চলে যায় বার ঘেঁষে। ৫৪ মিনিটেই গোল পেয়ে যায় ফ্রান্স। এর আগে পুরো ম্যাচে দারুণ কিপিং করা প্যাট্রিসিও করে বসেন মারাত্মক ভুল। রাবিঁওর নেওয়া শট সহজেই ধরার মতো ছিল। কিন্তু বা দিকে লাফিয়ে হাতে লাগিয়েও তা থামিয়ে রাখতে পারেননি। ফাঁকায় বল পেয়ে জালে জড়িয়ে দেন কন্তে। শেষ দিকে সমতায় ফিরতে মরিয়া হয়ে ওঠা পর্তুগাল গোলের উদ্দেশে মোট ১৮টি শট নেয়, যার ছয়টি ছিল লক্ষ্যে। কিন্তু পোস্টের নিচে লরিসের দারুণ নৈপুণ্য আর ডিফেন্ডারদের দৃঢ়তায় জালের দেখা পায়নি গতবারের চ্যাম্পিয়নরা। ৭৫ মিনিটে রোনালদোর কাছ থেকে বল পেয়ে জোয়াও ম্যাতিনিও জোরালো শট নিয়েছিলেন। তাও বাধাপ্রাপ্ত হয় লরিসের গ্লাভসে। সমান তালে আক্রমণ করে যাওয়া ফরাসিদের ১৩ শটের সাতটি ছিল লক্ষ্যে। তবে তার আগেই শেষ হয় পর্তুগালের যাত্রা।

পাঁচ ম্যাচে চার জয় ও এক ড্রয়ে ফ্রান্সের পয়েন্ট হলো ১৩। ১০ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে পর্তুগাল। দুই দলের পয়েন্ট সমান হলেও মুখোমুখি লড়াইয়ে এগিয়ে থাকায় শীর্ষেই থাকবে দিদিয়ে দেশমের দল। গ্রুপ তিনের অন্য ম্যাচে ঘরের মাঠে ক্রোয়েশিয়াকে ২-১ গোলে হারিয়েছে সুইডেন। দুই দলের পয়েন্ট সমান ৩ করে। গ্রুপ পর্বের শেষ রাউন্ডে আগামীকাল ক্রোয়েশিয়ার মাঠে খেলবে পর্তুগাল। আর সুইডেনের বিপক্ষে ঘরের মাঠে খেলবে ইউরোর গতবারের রানার্সআপ ফ্রান্স।

 

Facebook Comments