fbpx

ইংল্যান্ড সিরিজে সমতায় ফিরল

ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ৩ ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে ১৯ রানে জয় পায় অস্ট্রেলিয়া। দ্বিতীয়টিতেও ওপেনিং ব্যাটিং দেখে এক সময় মনে হয়েছিল আজই সিরিজ নিশ্চিত করতে যাচ্ছে অজিরা। কিন্তু সেই সহজ জয়ের লক্ষ্যে হঠাৎই পথ হারায় তারা। দলীয় ১৪৪ থেকে ১৪৭ রানে যেতে ৪ উইকেট হারিয়ে বসে অজিরা। ফলে ২৩১ রানের পুঁজি নিয়েও ২৪ রানের জয় পায় ইংল্যান্ড। এই সুবাদে তিন ম্যাচের সিরিজে এখন ১-১-এ সমতা।

ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৯ উইকেটে ২৩১ রানের সংগ্রহ দাঁড় করায় ইংল্যান্ড। এই মামুলি রান টপকাতে গিয়ে ৪৮.৪ ওভারে ২০৭ রানে থেমে যায় অজিদের ইনিংস।

সহজ লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ২ উইকেটে ১৪৪ তুলে ফেলেছিল অস্ট্রেলিয়া। অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ ও মার্নাস লাবুশেনের ব্যাটে ভর করে জয়ের দিকেই এগিয়ে যাচ্ছিল অস্ট্রেলিয়া।  কিন্তু এরপরই নাটকীয় ধস নামে দলটির ইনিংসে। দলীয় ১৪৪ থেকে ১৪৭ এই চার রানের ব্যবধানে অজিদের চার চার উইকেট তুলে নেয় ক্রিস ওকস ও জোফরা আর্চার। ফলে ১৪৪/২ থেকে নিমিষেই ১৪৭/৬-এ পরিণত হয় অস্ট্রেলিয়া।

দলীয় ১৪৩ রানের মাথায় লাবুশেন ব্যক্তিগত ৪৮ রানে ক্রিস ওকসের এলবির শিকার হন। ১৪৫ রানে মিচেল মার্শ বোল্ড আর্চারের বলে এবং অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ  ফেরেন ৭৩ রান তুলে। ১৪৭ রানের মাথায় ম্যাক্সওয়েল ফেরেন ওকসের বলে বোল্ড হয়ে। ফলে শেষ ৬৩ রানে ৮ উইকেট হারিয়ে ২০৭ রানে গুটিয়ে যায় সফরকারী দল।

অজিদের পক্ষে সর্বোচ্চ ৭৩ রান করেন অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ। এই ওপেনার ১০৫ বলে ৮ চার ও ১ ছক্কায় সাজান নিজের ইনিংস। চারে নেমে মার্নাস লাবুশেন করেন ৪৮ রান। ক্যারির ব্যাট থেকে আসে ৩৬।

ইংল্যান্ডের হয়ে ক্রিস ওকস, আর্চার ও স্যাম কারেন ৩টি করে উইকেট দখল করেন। এছাড়া ১ উইকেট নেন আদিল রশিদ।

এর আগে টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে রান খড়ায় ভুগছিল ইংল্যান্ড। দলটি ১৪৯ রান যোগ করতে হারিয়ে ফেলে ৮টি উইকেট। তবে আদিল রশিদ ও টম কারেনের দৃঢ়তায় দুইশ পেরোনো স্কোর গড়ে ইংলিশরা। নবম উইকেটে এই দুজন যোগ করেন ৭৬ রান। টম কারেন ৩৭ ও রশিদ অপরাজিত থাকেন ৩৫ রানে।

সর্বোচ্চ ৪২ রান আসে অধিনায়ক ওয়েন মরগানের ব্যাট থেকে। জো রুটের ব্যাট থেকে আসে ৩৯ রান। অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে অ্যাডাম জাম্পা সর্বাধিক ৩ উইকেট নেন। ২ উইকেট নিয়েছেন মিচেল স্টার্ক।

১০ ওভার বোলিংয়ে ৩২ রান খরচায় ৩ উইকেট নেন ক্রিস ওকস অপরদিকে ৩৪ রানের বিনিময়ে আর্চারের দখলেও ৩ উইকেট। কিন্তু ম্যাচসেরা পুরস্কার উঠেছে আর্চারের হাতে।

Facebook Comments