fbpx

৯ বাংলাদেশি পাকিস্তানের কারাগারে শিকলবন্দি

৯ জন বাংলাদেশি দীর্ঘ এক বছরের বেশি সময় ধরে পাকিস্তানের করাচির ল্যান্ডি জেলখানায় বন্দি রয়েছেন । ওমান ও পাকিস্তান সীমান্তবর্তী সাগরে মাছ ধরতে গিয়ে ইঞ্জিন বিকল হয়ে স্রোতের টানে পাকিস্তানের জলসীমায় ঢুকে পড়ে তারা। তখন পাকিস্তান নৌবাহিনী তাদের আটক করে। ওমানে আটককৃত এসব বাংলাদেশি নাগরিক  বৈধ শ্রম ভিসা নিয়ে অবস্থান করছিলেন। অনেক দিনের আইনি প্রক্রিয়া শেষে তাদের মুক্তি নিয়ে আদালত রায় দিলেও এখনও মুক্তি পাচ্ছেন না তারা। তাদের পরিবারের অভিযোগ কারাগারে আটক ব্যক্তিদের শিকলে বেঁধে রাখা হয়েছে। বাংলাদেশ থেকে যথাযথ কাগজপত্র না পৌঁছানোয় এখনও তাদের মুক্তি মিলছে না বলে তাদের অভিযোগ।পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, তিনি বিষয়টি এই প্রথম শুনেছেন এমনকি তার কাছে কোনও তথ্য  নেই।

আটককৃত ৯ ব্যক্তি হলেন, নোয়াখালীর হাতিয়া উপজেলার জাহাজমারা ইউনিয়নের চরহেয়ার গ্রামের ছাইদুল হকের ছেলে মো. নবীর উদ্দিন, সোনাদিয়া ইউনিয়নের বাংলাবাজার এলাকার আবু তাহেরের ছেলে মো. শাহরাজ, নিঝুমদ্বীপ ইউনিয়নের নামারবাজার বন্দরটিলা এলাকার গিয়াস উদ্দিনের ছেলে ইউসুফ উদ্দিন, নলচিরা ইউনিয়নের ৩নং রানী গ্রামের মো. এছহাকের ছেলে মো. আবুল কাশেম, জাহাজমারা ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের আবুল কাশেমের ছেলে মো. শরিফ, একই ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের সদু মিয়ার বাড়ির খবির উদ্দিনের ছেলে মো. সাহেদ ও ৩নং ওয়ার্ড চরহেয়ার গ্রামের আব্দুল মালেকের ছেলে মো. খান সাব, লক্ষ্মীপুরের কমলনগর উপজেলার ৬নং পাটারীরহাট ইউনিয়ন পরিষদের ১নং ওয়ার্ড পশ্চিম চর ফলকন গ্রামের দ্বীন মোহাম্মদ মাস্টারের বাড়ির দ্বীন মোহাম্মদের ছেলে মোহাম্মদ দেলোয়ার হোসেন ও একই জেলার রামগতি উপজেলার সেবা গ্রামের মো. রফিকের ছেলে মো. ফারুক মিয়া।

এছাড়া জানা গেছে যে, ওমান-পাকিস্তান সীমান্তবর্তী সাগরে মৎস্য আহরণরত অবস্থায় এসব বাংলাদেশি নাগরিককে আটক করে পাকিস্তান পুলিশ। আটকের পর সেখান থেকে তাদের করাচি ল্যান্ডি জেলখানায় বন্দি হিসেবে স্থানান্তর করা হয়। দীর্ঘ আইনি প্রক্রিয়া শেষে গত ৩ সেপ্টেম্বর পাকিস্তানের সিভিল জজ ও জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট-১ করাচি (পশ্চিম)-এর আদালতও এই ব্যক্তিদের মুক্তির বিষয়ে আইনগত কোনও বাধা নেই বলে আদেশ দেন।

 

Facebook Comments