fbpx

আরও ভয়াবহ হচ্ছে করোনাভাইরাস: ডব্লিউএইচও

বৈশ্বিক মহামারী করোনাভাইরাসের কারণে পুরো বিশ্ব প্রায় স্থবির হয়ে পরেছে। আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে করোনার বিস্তার। ইতিমধ্যে ২১৩টি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে করোনা।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) এর হিসাবে, একদিনেই সারা পৃথিবীতে নতুন করে রেকর্ড সংখ্যক দেড় লাখ মানুষের শরীরে এ ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। শুক্রবার জেনেভা-র সদর দফতর থেকে এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে এমন তথ্য জানিয়েছেন ডব্লিউএইচও-এর মহাপরিচালক টেড্রোস ঘেব্রেয়েসাস। তিনি বলেন, দুনিয়াজুড়ে করোনাভাইরাস মহামারি একটি নতুন ও বিপজ্জনক পর্যায়ে পৌঁছেছে।

টেড্রোস ঘেব্রেয়েসাস বলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত হওয়ার ব্যক্তিদের অর্ধেকই আমেরিকা অঞ্চলের বাসিন্দা। এর বাইরে দক্ষিণ এশিয়া ও মধ্যপ্রাচ্যও রয়েছে সর্বোচ্চ সংক্রমণের তালিকায়। তিনি বলেন, ভাইরাসটি এখনও দ্রুত বিস্তার ঘটিয়ে চলেছে। প্রকৃতপক্ষে পুরো দুনিয়া এখন একটি নতুন এবং বিপজ্জনক পর্যায়ে প্রবেশ করেছে।

তিনি বলেন, ‘কোভিড-১৯ প্রমাণ করেছে যে, সবাই নিরাপদ না হওয়া পর্যন্ত কেউই নিরাপদ নয়। রাজনীতিকে এক পাশে রেখে সত্যিকারের সহযোগিতার মাধ্যমেই পরিবর্তন সম্ভব’। ‘এখনও পর্যন্ত করোনাভাইরাসের কোনও টিকা নেই। যদি কোনও ভ্যাকসিন আবিষ্কার হয়, তবে সেটিই হবে করোনা মোকাবিলায় প্রথম টিকা।’

ডব্লিউএইচও মহাপরিচালক বলেন, এখনও বহু মানুষ প্রাণঘাতী এ ভাইরাসে আক্রান্তের ঝুঁকিতে রয়েছে। তিনি বলেন, ‘বহু মানুষ ঘরে থাকতে থাকতে বিরক্ত হয়ে পড়ছে। এজন্যই হয়তো অনেক দেশ স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরতে চাইছে। তবে করোনা এখনও দ্রুত বিস্তার ঘটিয়ে চলছে। ফলে সামাজিক দূরত্ব, মাস্ক পরা ও হাত ধোয়ার মতো বিষয়গুলো এখনও খুবই জরুরি।’

টেড্রোস ঘেব্রেয়েসাস বলেন, ‘অসুস্থ বোধ করলে ঘরে থাকুন। কাশির সময় নাক-মুখ ঢেকে রাখুন। যেখানে প্রয়োজন সেখানে মাস্ক পরুন। হাত পরিষ্কার রাখুন।’

সূত্র: রয়টার্স, সিএনবিসি।

Facebook Comments